গ্রীষ্ম (২)

সর্বনেশে              গ্রীষ্ম এসে             বর্ষশেষে              রুদ্রবেশে
আপন ঝোঁকে      বিষম রোখে         আগুন ফোঁকে     ধরার চোখে।
তাপিয়ে গগন       কাঁপিয়ে ভুবন      মাত্‌ল তপন         নাচল পবন।
রৌদ্র ঝলে            আকাশতলে        অগ্নি জ্বলে           জলেস্থলে।
ফেল্‌ছে আকাশ    তপ্ত নিশাস          ছুট্‌ছে বাতাস        ঝলসিয়ে ঘাস,
ফুলের বিতান       শুক্‌নো শ্মশান    যায় বুঝি প্রাণ       হায় ভগবান।
দারুণ তৃষায়          ফির্‌ছে সবায়      জল নাহি পায়      হায় কি উপায়,
তাপের চোটে       কথা না ফোটে    হাঁপিয়ে ওঠে         ঘর্ম ছোটে।
বৈশাখী ঝড়         বাধায় রগড়         করে ধড়্‌ফড়্‌        ধরার পাঁজর,
দশ দিক হয়         ঘোর ধূলিময়        জাগে মহাভয়      হেরি সে প্রলয়,
করি তোলপাড়    বাগান বাদাড়       ওঠে বারবার         ঘন হুঙ্কার,
শুনি নিয়তই        থাকি থাকি ওই     হাঁকে হৈ হৈ         মাভৈ মাভৈঃ।
এই লেখাটি বার পড়া হয়েছে